make money online

আউটসোর্সিং কী? কিভাবে কাজ করবেন জানতে পড়ুন-

About Outsourcing

সারা দুনিয়ায় এখন আউটসোর্সিং খুবই জনপ্রিয়। যারা কাজ করায় এবং যারা কাজ করে উভয়েরপক্ষের সুবিধা। যারা কাজ করায় তারা তুলনামূলক কম খরচে দক্ষ লোক পাচ্ছে এবং সময়মতো কাজ করাতে পারছে। অন্যদিকে যারা আউটসোর্সিং করছেন তারাও ঘরে বসে তাদের যোগ্যতা অনুসারে সর্বাধিক আয় করতে পারছেন।

সবচেয়ে মজার ব্যাপার হচ্ছে  ১৮/১৯ বছর পড়াশোনা করে ৩০/৪০ হাজার টাকার চাকরির জন্য আবার ১০/১২ লাখ টাকা  ঘুষ দেয়ার কথা অহরহ শুনছি। অথচ কোনরকম মামু খালু বা ঘুষ ছাড়াই অনলাইনে স্বাধিনভাবে কাজ করে সহজেই মাসে ১/২ লাখ টাকা ইনকাম করছে এরকম মানুষের সংখ্যা একেবারে কম নয়।

ইদানিং বাংলাদেশসহ বিশ্বের প্রতিটি দেশে খুব বেশি মাতামাতি হচ্ছে আউটসোর্সিং নিয়ে। ইন্টারনেটের বিকাশের ফলে  তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলোর জন্য ঘরে বসে অন্য দেশের কাজ করে দেওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমানে অনলাইনে আউটসোসিং এর মাধ্যমে কাজ করে টাকা ইনকাম করা একটি ব্যাপক জনপ্রিয় মাধ্যম। নারী বা পুরুষ যে কেউ ইন্টারনেটের মাধ্যমে আউটসোসিং করে টাকা ইনকাম করতে পারে। বিশ্বে আউটসোর্সিং তালিকায় বাংলাদেশে অবস্থান তৃতীয়। আমাদের মত স্বল্পউন্নত বা উন্নয়নশীল দেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির জন্য আউটসোর্সিং খুবই গুরুত্বপুর্ণ্ ভুমিকা পালন করে আসছে । একজন আউটসোর্সিং সেবাদানকারী বা ফ্রিলান্সার নির্দিষ্ট অর্থের বিনিময়ে কাজ করে থাকেন। আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে যে কোনো দক্ষ কর্মী ঘরে বসে তার মেধা দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে অর্থ উপার্জন করতে পারে।

স্বাধীন বা মুক্তভাবে বা কোন প্রতিষ্ঠানের বা কোন কোম্পানির অধীনে না থেকে স্বাধীনভাবে ইন্টারনেটের মাধ্যমে কোন  প্রতিষ্ঠান বা ব্যাক্তির প্রয়োজন অনুযায়ী কাজ বা সেবা বিনিময় করে আয় করার পদ্ধতি হচ্ছে আউটসোর্সিং। আবার, আউটসোর্সিং বলতে কোন একটি ব্যবসায়িক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে নিজের কাজ অন্যকে দিয়ে করিয়ে নেয়াকে বুঝায়। মোটকথা, একজন সেবা গ্রহীতা অনলাইনের মাধ্যমে নির্দিষ্ট অর্থের বিনিময়ে সেবা গ্রহণ করলে তাকে আউটসোসিং বলে। এতে দুইটি পক্ষ থাকে একজন সেবা গ্রহীতা অন্যজন সেবা দাতা। যারা আউটসোর্সিংয়ের সেবা বা কাজ করে দেন, তাঁদের ফ্রিল্যান্সার বলে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান যখন তাদের নিজেদের অনেক কাজ যেমন ওয়েবসাইট উন্নয়ন, রক্ষণাবেক্ষণ, মাসিক বেতন, বিল প্রস্তুতকরণ, ওয়েবসাইটে তথ্য যোগ করা, সফটওয়্যার তৈরি ইত্যাদি কাজ অন্য কোনো একটি প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তিগোষ্ঠী দ্বারা পারিশ্রমিকের বিনিময়ে সম্পন্ন করিয়ে নেয় তখন তাকে আউটসোর্সিং বলে।

ইন্টারনেটে আউটসোর্সিং করে টাকা ইনকাম করতে চাইলে বিভিন্ন বিষয়ে দক্ষতা থাকা দরকার।

আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে আয়:

আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে কিভাবে আয় করবো এ নিয়ে অনেকেরই প্রশ্ন থাকে। অনেকেই আউটসোর্সিং করে ইনকাম করার জন্য সঠিক গাইডলাইন পান না ফলে আউটসোর্সিং নিয়ে অনেকের কৌতুহল থাকলেও, আউটসোর্সিং করে কিভাবে ইনকাম করতে হয় তা অজানাই থেকে যায়। এই অজানা থেকে বের হয়ে আউটসোর্সিং করে ইনকাম করতে চাইলে:

  • আপনাকে যেকোন একটি বা একাধিক বিষয়ে কাজ জানতে হবে।
  • নির্দিষ্ট কিছু ওয়েবসাইটে কাজের আবেদন করতে হবে।
  • আবেদনে সাড়া পেলে যথাসময়ে কাজ সম্পন্ন করে দিতে হবে।

কাজ সম্পন্ন করলেই কেবল আপনি আপনার কাজের বিনিময়ে অর্থ পাবেন। আউটসোর্সিং করে আয় করার এই তিনটি ধাপ অবশ্যই আপনাকে মানতে হবে। পাশাপাশি এটাও মনে রাখতে হবে, শুধু কাজ জানলেই হবে না সেইসাথে আবেদন প্রক্রিয়াসহ আনুষঙ্গিক ব্যপারগুলোও খুটিনাটি জানতে হবে।

ওয়েব ডিজাইন, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন, সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট, ডাটা এন্ট্রি, নেটওয়ার্কিং এর কাজ, গ্রাফিক্স ডিজাইন এন্ড মাল্টিমিডিয়া, সেলস এন্ড মার্কেটিং, পার্সোনাল হেল্প, আর্টিকেল লেখা ও অনুবাদ, বিভিন্ন ধরনের সেবা, নেটওয়ার্কিং ও তথ্যব্যবস্থা (ইনফরমেশন সিস্টেম), প্রশাসনিক সহায়তা, বিক্রয় ও বিপণন ইত্যাদি ছাড়া আরও বিভিন্ন মাধ্যম থেকে আউটসোর্সিং করা যায়।

আউটসোর্সিং কিভাবে শিখবো:

আউটসোর্সিং কিভাবে শিখবেন এটি প্রায় সবার কমন প্রশ্ন। এর উত্তর হচ্ছে, আউটসোর্সিং শেখার তিনটি উপায় আছে। আপনি তিনটি উপায়ের যেকোন একটি উপায় অবলম্বন করে আউটসোর্সিং এর কাজ শিখতে পারেন। তিনটি উপায় হলো:

  • কোন প্রতিষ্ঠানে আউটসোর্সিং কোর্স সম্পন্ন করা
  • ব্যাক্তিগতভাবে কারও কাছে আউটসোর্সিং কাজ শেখা
  • ইউটিউব ভিডিও টিউটোরিয়াল দেখে শেখা

ইতি কথা-
অনলাইনে আয় করার আরো হাজারো সহজ উপায় আছে । এর জন্য নিজেকে দক্ষ করতে হবে আর ধৈর্য্য ধরে পরিশ্রম করে যেতে হবে। নিত্যনতুন স্কিলের সাথে নিজেকে আপডেট রাখতে হবে।

শেয়ার করুন 👇👇

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *